মঙ্গলবার, আগস্ট ৪, ২০২০
লেখালেখি ডেস্ক
২৭ জুলাই ২০২০
১:৪৩ অপরাহ্ণ
আপনার উপর শরীরের দাবী বা অধিকার:==
আপনার উপর শরীরের দাবী বা অধিকার:=-thetopnews24.com

২৭ জুলাই ২০২০ ১:৪৩ অপরাহ্ণ

প্রতিটি মানুষের উপর তার অঙ্গ প্রত্যঙ্গের দাবী রয়েছে সেটাকে দেখাশুনা করা তথা সুস্থ রাখার দাবী । কারণ শরীরটা কার আপনার এর সাথে যুক্ত হাত,পাঁ ,চোখ, হার্ট , ফুসফুস , লিভার ইত্যাদি সবই তো আপনার । সুতরাং এর যত্ন্র নেবে কে ? নিশ্চয় আপনি । কিন্তু দেখা যাচ্ছে অধিকাংশ শিক্ষাথী,তরুণ যুবক থেকে শুরু করে চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী প্রায় সবাই নিজের অমুল্য সম্পদ শরীরের যত্নের কথা মনে রাখেন না । রাত জেগে অনলাইন গেম ,সোস্যাল মিডিয়া, ইউটিউব, ফেসুবক,টকসো আরও কতকি । রাতে অন্তত: ৭ ঘন্টা ঘুমের খবর নাই । প্রতিদিনের ব্যয়ামের সময় নাই, সঠিক সময় সঠিক খাদ্য গ্রহনের আগ্রহ বা মনে নাই । যখন মারাত্মক অনিয়মের কারণে অঙ্গ প্রত্যঙ্গ বিগড়ে যায় । শরীর যখন আর পেরে উঠে না তখন বুঝতে পারে কি ভুলটাই না আমরা করেছি । রাসুল (সা.) বলেন, ‘নিশ্চয় তোমার ওপর তোমার শরীরের হক আছে। ’ (বুখারি, হাদিস নং: ৫৭০৩) রাসুল(সা.) আরও বলেন, ‘কিয়ামতের দিন বান্দাকে নিয়ামত সম্পর্কে সর্বপ্রথম যে প্রশ্নটি করা হবে তা হলো তার সুস্থতা সম্পর্কে। তাকে বলা হবে আমি কি তোমাকে শারীরিক সুস্থতা দিইনি?’ (তিরমিজি)।
বর্তমানে লক ডাউনে আমরা আরও অস্বাভাবিক পরিস্থিতিতে পড়ে গেছি । অধিকাংশ মানুষই কমবেশী শারীরিক মানসিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছি । সুতরাং খুবই সচেতন হতে হবে । অন্তত: ৭ বা ৮ ঘন্টা ঘুমাতে চেষ্টা করতে হবে , রাত জেগে অনলাইনে থাকা যাবে না । প্রতিদিন ( সপ্তাহে অন্তত: ৬দিন) কমকরে হলেও ৩০ মিনিট ব্যায়াম করতে হবে , এটি পড়াশোনা , চাকরি বা ব্যবসার মতই জরুরি বিষয় মনে করতে হবে । যতদুর সম্ভব দামী হতে হবে এমন নয় কিন্তু পরিকল্পিত পুষ্ঠিযুক্ত খাদ্য গ্রহনের অভ্যাস গড়ে তুলতেই হবে এবং সময় মত নিয়ম করে খাবার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে ।

এরপরও কোন কারণে অসুস্থ হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে । এ ক্ষেত্রে নবী করিম (সা.) বলেন, ‘হে আল্লাহর বান্দারা! তোমরা চিকিৎসা গ্রহণ করো, কেননা মহান আল্লাহ এমন কোনো রোগ সৃষ্টি করেননি, যার প্রতিষেধক তিনি সৃষ্টি করেননি। তবে একটি রোগ আছে যার কোনো প্রতিষেধক নেই, সেটি হলো বার্ধক্য।’(আবু দাউদ)। সুস্থ থাকার জন্য পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা পূর্বশর্ত । ডেংগু,চিগনগুনিয়া সহ জীবানুঘটিত বহু রোগের কারণ পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার অভাব । রাসুল (সা.) বলেন— ‘পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ইমানের অঙ্গ। । ভাইরাস রোগ প্রতিরোধের অন্যতম উপায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এবং হাচিঁ কাশির সময় শিষ্টাচার মেনে চলা । প্রতিদিন মিডিযাতে বলা হচ্ছে শিষ্টাচার মেনে চলুন কিন্তু অধিকাংশের অভাসই হচ্ছেনা হাচিঁ কাশির সময় মুখ ঢাকার নিয়ম মানার। যে অভ্যাস ছোট বেলায় পারিবারিক ভাবে গড়ে উঠেনা বড় বেলায় তৈরি করা কঠিন কিন্তু অভ্যাস কি ভাবে বদলাতে হয় বা নতুন অভ্যাস তৈরির উপায় নিয়ে আমার বেশ কিছু ভিডিও রয়েছে । অথচ সেই চৌদ্দশত বছর আগে রাসুল (সা ) হাঁচি-কাশির সময় আওয়াজ ছোট করা এবং কাপড় দিয়ে মুখ ঢাকার কথা বলে গেছেন । অথচ আমরা কোন নিয়ম কানুনই মানছিনা বা খারাপ অভ্যাস বদলাতে চাচ্ছি না অথচ সুস্থ থাকতে চাচ্ছি । এটা কি সম্ভব ? ----সবার সুস্থতার কামনা করি । সবার প্রতি অনেক ভালোবাসা ।,
মো.আলমাসুর রহমান
Counsellor, Mind Gym ,
East West University
২৭/০৭/২০

সম্পর্কিত খবর